রাজবংশের সংঘর্ষ: ১ম শতাব্দীতে শক-সাতবাহন প্রতিদ্বন্দ্বিতা

 খ্রিস্টীয় ১ম শতাব্দীতে শক-সাতাবাহন বৈরিতার একটি সংক্ষিপ্ত ইতিহাস লেখ।

খ্রিস্টীয় ১ম শতাব্দীতে শক-সাতাবাহন দ্বন্দ্ব ছিল প্রাচীন ভারতে দুটি শক্তিশালী রাজবংশের মধ্যে একটি উল্লেখযোগ্য দ্বন্দ্ব। এখানে মূল পয়েন্ট সহ এই প্রতিদ্বন্দ্বীর একটি সংক্ষিপ্ত ইতিহাস রয়েছে:

 1. সাতবাহনদের উত্থান: 

সাতবাহন রাজবংশ ভারতের দাক্ষিণাত্য অঞ্চলে আবির্ভূত হয় খ্রিস্টীয় ১ম শতাব্দীতে। তারা তাদের রাজধানী প্রতিষ্ঠা করে (বর্তমান পৃথন) এবং দ্রুত তাদের প্রভাব বিস্তার করে, এই অঞ্চলে একটি প্রভাবশালী শক্তিতে পরিণত হয়।

 2. শক অনুপ্রবেশ: 

পশ্চিম স্যাট্রাপ, যারা শক বা সিথিয়ান নামেও পরিচিত, তারা ছিল মধ্য এশিয়ার যাযাবর উপজাতিদের একটি দল যারা পশ্চিম ভারতের কিছু অংশের উপর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করেছিল। তারা পূর্বে মৌর্য সাম্রাজ্যকে চ্যালেঞ্জ করেছিল এবং পরে ভারতীয় উপমহাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে তাদের কর্তৃত্ব জাহির করেছিল।

 3. অঞ্চল নিয়ে দ্বন্দ্ব: 

শক এবং সাতবাহন রাজবংশের সীমানা ভাগাভাগি ছিল, যার ফলে আঞ্চলিক বিরোধ এবং কৌশলগত অঞ্চলগুলির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সংঘাত দেখা দেয়। নর্মদা নদী এবং পশ্চিম দাক্ষিণাত্যের আশেপাশের অঞ্চলগুলি বিশেষভাবে বিতর্কিত ছিল।

 4. গৌতমীপুত্র সাতকার্নি: 

সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য সাতবাহন শাসকদের মধ্যে একজন ছিলেন গৌতমীপুত্র সাতকর্ণি, যিনি ৮৬ খ্রিস্টাব্দের দিকে সিংহাসনে আরোহণ করেছিলেন। তিনি পশ্চিমী সত্রাপদের বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান শুরু করেছিলেন এবং তাদের পূর্বে শকদের দখলে থাকা অঞ্চলগুলি পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হন।

 5. উত্তরাধিকার সংকট: 

সাতবাহন রাজবংশের মধ্যে উত্তরাধিকার সংক্রান্ত সমস্যার কারণে খ্রিস্টীয় ১ম শতাব্দীতে শক-সাতাবাহন শত্রুতা তীব্র হয়। এটি শকদের জন্য অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বকে কাজে লাগানোর এবং সাতবাহন অঞ্চলের উপর নিয়ন্ত্রণ লাভের চেষ্টা করার সুযোগ তৈরি করেছিল।

 6. নাহাপনার পরাজয়: 

নাহাপনা, একজন শক্তিশালী শক শাসক, সাতবাহনদের জন্য একটি উল্লেখযোগ্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছিল। যাইহোক, গৌতমীপুত্র সাতকর্ণী তাকে যুদ্ধে পরাজিত করেন এবং তাকে দাক্ষিণাত্য থেকে বিতাড়িত করেন এবং সাতবাহন নিয়ন্ত্রণকে আরও সুসংহত করেন।

 7. অস্থায়ী শক পুনরুত্থান: 

তাদের বাধা সত্ত্বেও, গৌতমীপুত্র সাতকর্ণীর রাজত্বের পর শকরা কিছু অঞ্চল পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছিল। তারা পশ্চিম ভারতে উপস্থিতি বজায় রেখে মালওয়া এবং গুজরাটের মতো এলাকায় তাদের শাসন প্রতিষ্ঠা করেছিল।

 8. দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব: 

শক-সাতাবাহন শত্রুতা প্রাচীন ভারতের রাজনৈতিক ভূখণ্ডে দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব ফেলেছিল। এই দুই রাজবংশের মধ্যে দ্বন্দ্ব এবং ক্ষমতার লড়াই এই অঞ্চলে বিভক্তকরণ এবং জোট পরিবর্তনে অবদান রাখে।

 এটি লক্ষণীয় যে শক-সাতাবাহন শত্রুতা একটি অবিচ্ছিন্ন বা একক দ্বন্দ্ব ছিল না বরং এটি ছিল সামরিক সংঘর্ষ এবং আঞ্চলিক বিরোধের একটি সিরিজ যা ১ম শতাব্দীতে কয়েক দশক ধরে উদ্ভূত হয়েছিল।

Related Short Question:

প্রশ্নঃ শক-সাতাবাহন দ্বন্দ্বে জড়িত মূল রাজবংশ কারা ছিল?

 উত্তর: প্রতিদ্বন্দ্বিতার সাথে জড়িত রাজবংশগুলি ছিল শাক (পশ্চিম ত্রাপ) এবং সাতবাহন।

 প্রশ্নঃ সাতবাহনরা তাদের রাজধানী কোথায় স্থাপন করেছিল?

 উত্তর: সাতবাহনরা তাদের রাজধানী প্রতিষ্ঠা করেন প্রতিষ্টানে (বর্তমান পৃথন)।

 প্রশ্ন: শক-সাতাবাহন দ্বন্দ্বে কোন অঞ্চলগুলি বিশেষভাবে বিতর্কিত ছিল?

 উত্তর: নর্মদা নদী এবং পশ্চিম দাক্ষিণাত্যের আশেপাশের অঞ্চলগুলি বিশেষভাবে বিতর্কিত ছিল।

 প্রশ্ন: উল্লেখযোগ্য সাতবাহন শাসক কে ছিলেন যিনি শকদের পিছনে ঠেলে দিয়েছিলেন?

 উত্তর: গৌতমীপুত্র সাতকর্ণি, একজন বিশিষ্ট সাতবাহন শাসক, শকদের পিছনে ঠেলে দিয়েছিলেন এবং অঞ্চলগুলি পুনরুদ্ধার করেছিলেন।

 প্রশ্ন: শক-সাতাবাহন দ্বন্দ্ব রাজনৈতিক দৃশ্যপটে কী প্রভাব ফেলেছিল?

 উত্তর: প্রতিদ্বন্দ্বিতা প্রাচীন ভারতে বিভক্তকরণ এবং মিত্রতা পরিবর্তনে অবদান রেখেছিল।

 প্রশ্ন: কোন শক শাসক সাতবাহনদের জন্য একটি উল্লেখযোগ্য হুমকি সৃষ্টি করেছিলেন?

 উত্তর: নাহাপানা, একজন শক্তিশালী শক শাসক, সাতবাহনদের জন্য একটি উল্লেখযোগ্য হুমকি সৃষ্টি করেছিলেন।

 প্রশ্ন: শকরা তাদের বিপর্যয়ের পরে কোন অঞ্চলগুলি পুনরুদ্ধার করতে পেরেছিল?

 উত্তর: শকরা মালওয়া এবং গুজরাটের মতো অঞ্চলগুলি পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছিল।

 প্রশ্নঃ শক-সাতাবাহন শত্রুতা কতদিন স্থায়ী হয়েছিল?

 উত্তর: খ্রিস্টীয় ১ম শতাব্দীতে কয়েক দশক ধরে প্রতিদ্বন্দ্বিতা প্রকাশ পায়।

 প্রশ্নঃ শক-সাতাবাহন দ্বন্দ্বের প্রধান কারণ কী ছিল?

 উত্তর: দ্বন্দ্বগুলি মূলত আঞ্চলিক বিরোধ এবং দুটি রাজবংশের মধ্যে ক্ষমতার লড়াইয়ের কারণে সৃষ্ট হয়েছিল।

 প্রশ্নঃ শক-সাতাবাহন দ্বন্দ্বে কে প্রধান শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হয়েছিল?

 উত্তর: অবশেষে, সাতবাহনরা প্রভাবশালী শক্তি হিসাবে আবির্ভূত হয়েছিল, শাকদের পিছনে ঠেলে এবং অঞ্চলগুলি পুনরুদ্ধার করেছিল।


Next Post Previous Post