আপনার বয়স চেক করুন বয়স ক্যালকুলেটর দিয়ে! Click here. রোমান সংখ্যা দেখুন Roman Numbers Calculator দিয়ে! Click here.
FF Advance Server .co.in

কাইজার দ্বিতীয় উইলিয়াম দ্বারা প্ররোচিত 'ওয়েল্ট পলিটিক' ধারণাটি সংক্ষেপে আলোচনা কর।

কায়জার দ্বিতীয় উইলিয়াম এর বিশ্ব রাজনীতি: উচ্চাকাঙ্ক্ষা এবং পরিণতি

 1888 থেকে 1918 সাল পর্যন্ত জার্মান সম্রাট কায়জার দ্বিতীয় উইলিয়াম, "ওয়েল্ট পলিটিক" বা "বিশ্ব রাজনীতি" নামে পরিচিত একটি নীতির পক্ষে ছিলেন। এখানে এই ধারণা সম্পর্কে কিছু মূল পয়েন্ট আছে:

 1. জার্মান প্রভাব বিস্তার: 

ওয়েল্ট পলিটিক জার্মানির বৈশ্বিক প্রভাব বিস্তার এবং এটি একটি প্রধান বিশ্ব শক্তি হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করার লক্ষ্যে। কায়জার দ্বিতীয় উইলিয়াম বর্তমান ক্ষমতার ভারসাম্যকে চ্যালেঞ্জ করতে এবং বিশ্ব মঞ্চে জার্মানির মর্যাদা উন্নীত করার চেষ্টা করেছিলেন।

 2. নৌ সম্প্রসারণ: 

ওয়েল্ট পলিটিক-এর একটি উল্লেখযোগ্য দিক ছিল জার্মান নৌবাহিনীর সম্প্রসারণ, বিশেষ করে একটি শক্তিশালী যুদ্ধজাহাজ নৌবহর তৈরি করা। এই নৌবাহিনীর সম্প্রসারণকে জার্মান বৈদেশিক স্বার্থ রক্ষা এবং বিশ্বব্যাপী প্রকল্প ক্ষমতার একটি উপায় হিসাবে দেখা হয়েছিল।

 3. ঔপনিবেশিক উচ্চাকাঙ্ক্ষা: 

ওয়েল্ট পলিটিক ঔপনিবেশিক অঞ্চল এবং বিদেশী সম্পত্তির সাধনা অন্তর্ভুক্ত। জার্মানির লক্ষ্য ছিল আফ্রিকা, এশিয়া এবং প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে উপনিবেশ অর্জন করা, প্রাথমিকভাবে মূল্যবান সম্পদ সুরক্ষিত করা এবং অর্থনৈতিক আধিপত্য প্রতিষ্ঠা করা।

 4. প্রতিষ্ঠিত শক্তির সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা: 

কায়জার দ্বিতীয় উইলিয়াম জার্মানিকে ব্রিটেন এবং ফ্রান্সের মতো প্রতিষ্ঠিত শক্তির প্রতিদ্বন্দ্বী হিসাবে কল্পনা করেছিলেন। তিনি তাদের আধিপত্যকে চ্যালেঞ্জ করতে চেয়েছিলেন এবং ঔপনিবেশিক অঞ্চল, নৌ আধিপত্য এবং অর্থনৈতিক প্রভাবের জন্য প্রতিযোগিতা করতে চেয়েছিলেন।

 5. আধুনিকায়ন এবং শিল্পায়ন: 

ওয়েল্ট পলিটিক জার্মানির অর্থনীতির আধুনিকায়ন ও শিল্পায়নের প্রচেষ্টার সাথে ঘনিষ্ঠভাবে যুক্ত ছিল। কায়সার বিশ্বাস করতেন যে জার্মানির বৈশ্বিক উচ্চাকাঙ্ক্ষাকে সমর্থন করার জন্য একটি শক্তিশালী শিল্প ভিত্তি এবং প্রযুক্তিগত অগ্রগতি প্রয়োজন।

 6. আক্রমনাত্মক কূটনীতি: 

কায়জার দ্বিতীয় উইলিয়াম কূটনীতির একটি দৃঢ় এবং কখনও কখনও উস্কানিমূলক শৈলী অনুসরণ করেছিলেন, কূটনৈতিক ব্রঙ্কম্যানশিপে জড়িত ছিলেন এবং আরও জার্মান স্বার্থের জন্য জোটকে চালিত করার চেষ্টা করেছিলেন। এই দৃষ্টিভঙ্গি আন্তর্জাতিক সম্পর্ককে উত্তেজিত করে এবং ইউরোপে উত্তেজনা বৃদ্ধিতে অবদান রাখে।

 7. ইউরোপীয় ভূ-রাজনীতির উপর প্রভাব: 

কায়জার দ্বিতীয় উইলিয়াম দ্বারা ওয়েল্ট পলিটিক-এর অনুসরণ ইউরোপে ক্ষমতার ভারসাম্য পরিবর্তনে অবদান রাখে। এটি জাতিগুলির মধ্যে বিদ্যমান প্রতিদ্বন্দ্বিতা এবং শত্রুতাকে আরও বাড়িয়ে তোলে, শেষ পর্যন্ত উত্তেজনা বৃদ্ধির দিকে পরিচালিত করে যা প্রথম বিশ্বযুদ্ধের প্রাদুর্ভাবের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল।

 8. উত্তরাধিকার: 

ওয়েল্ট পলিটিক প্রায়ই ইউরোপকে অস্থিতিশীল করতে এবং সামরিকবাদ ও সংঘাত বৃদ্ধিতে অবদান রাখার জন্য তার ভূমিকার জন্য সমালোচিত হয়। কায়জার দ্বিতীয় উইলিয়ামের শাসনামলে বিশ্বশক্তি হিসেবে জার্মানির ধারণা সম্পূর্ণরূপে উপলব্ধি করা যায়নি এবং তার পররাষ্ট্রনীতির পরিণতি নিয়ে ইতিহাসবিদদের বিতর্ক অব্যাহত রয়েছে।

 এটা লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে ওয়েল্ট পলিটিক বাস্তবায়নের সুদূরপ্রসারী ফলাফল ছিল এবং কায়জার ব্যক্তিগত বিশ্বাসের বাইরে বিভিন্ন কারণের দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিল, যার মধ্যে অভ্যন্তরীণ রাজনীতি, সামরিক উপদেষ্টা এবং ভূ-রাজনৈতিক পরিস্থিতি রয়েছে।

Related Short Question:

প্রশ্নঃ কায়জার দ্বিতীয় উইলিয়াম কে ছিলেন?

 উত্তর: কায়জার দ্বিতীয় উইলিয়াম 1888 থেকে 1918 সাল পর্যন্ত জার্মান সম্রাট ছিলেন।


 প্রশ্ন: ওয়েল্ট পলিটিক কি ছিল?

 উত্তর: ওয়েল্ট পলিটিক ছিল কায়জার দ্বিতীয় উইলিয়াম এর বিশ্বব্যাপী প্রভাব অনুসরণ করার এবং জার্মানিকে একটি প্রধান বিশ্ব শক্তি হিসাবে প্রতিষ্ঠা করার নীতি।


 প্রশ্ন: ওয়েল্ট পলিটিক এর মূল উদ্দেশ্য কি ছিল?

 উত্তর: ওয়েল্ট পলিটিকের প্রধান উদ্দেশ্য ছিল জার্মান প্রভাব বিস্তার, নৌবাহিনীর সম্প্রসারণ, উপনিবেশ অর্জন এবং প্রতিষ্ঠিত ক্ষমতাকে চ্যালেঞ্জ করা।


 প্রশ্ন: কায়জার দ্বিতীয় উইলিয়াম কীভাবে বিশ্ব মঞ্চে জার্মানির ভূমিকা কল্পনা করেছিলেন?

 উত্তর: কায়জার দ্বিতীয় উইলিয়াম জার্মানিকে বিদ্যমান শক্তির প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে কল্পনা করেছিলেন, ঔপনিবেশিক অঞ্চল, নৌ-আধিপত্য এবং অর্থনৈতিক আধিপত্যের জন্য প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চেয়েছিলেন।


 প্রশ্ন: ইউরোপীয় ভূ-রাজনীতিতে ওয়েল্ট পলিটিক কী প্রভাব ফেলেছে?

 উত্তর: ওয়েল্ট পলিটিক ইউরোপে উত্তেজনা বাড়াতে, আন্তর্জাতিক সম্পর্কের টানাপোড়েনে অবদান রেখেছিল এবং শেষ পর্যন্ত প্রথম বিশ্বযুদ্ধের প্রাদুর্ভাবের ক্ষেত্রে ভূমিকা পালন করেছিল।


 প্রশ্ন: কায়জার দ্বিতীয় উইলিয়াম কীভাবে ওয়েল্ট পলিটিক অনুসরণ করেছিলেন?

 উত্তর: কায়জার দ্বিতীয় উইলিয়াম আক্রমনাত্মক কূটনীতি, নৌবাহিনীর সম্প্রসারণ, শিল্পায়ন এবং বৈশ্বিক বিষয়ে জার্মানির স্বার্থকে জোর দিয়ে ওয়েল্ট পলিটিকককে অনুসরণ করেছিলেন।


 প্রশ্ন: ওয়েল্ট পলিটিক এর কিছু সমালোচনা কি?

 উত্তর: ওয়েল্ট পলিটিক ইউরোপকে অস্থিতিশীল করা, সামরিকবাদ বৃদ্ধি করা এবং প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরুতে অবদান রাখার জন্য সমালোচিত।


 প্রশ্ন: কায়জার দ্বিতীয় উইলিয়াম এর ওয়েল্ট পলিটিক কি তার লক্ষ্য অর্জন করেছিল?

 উত্তর: কায়জার দ্বিতীয় উইলিয়াম এর ওয়েল্ট পলিটিক সম্পূর্ণরূপে তার লক্ষ্যগুলি অর্জন করতে পারেনি এবং এর পরিণতিগুলি ইউরোপীয় ইতিহাসে সুদূরপ্রসারী এবং অনাকাঙ্ক্ষিত পরিণতি নিয়ে এসেছে।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url